সিসিটিভি ক্যামেরা কিভাবে কাজ করে? সিসিটিভি ক্যামেরা কেনার ক্ষেত্রে যেসব বিষয় বিবেচনা করতে হবে? বিভিন্ন ধরনের সিসিটিভি ক্যামেরা?

সিসিটিভি ক্যামেরা কিভাবে কাজ করে

বাসার নিরাপত্তার জন্য ব্যবহৃত বেশিরভাগ সিসিটিভি বা ক্লোজড্‌ সার্কিট টিভি ক্যামেরাগুলো হচ্ছে সলিড-স্টেট ইলেক্ট্রনিক ডিভাইস যা একটি সেন্ট্রাল রেকর্ডারের সাথে সংযুক্ত থাকে। কাজেই একটি নির্দিষ্ট অবস্থানে এটি সম্প্রচার করে এবং একারনেই একে ক্লোজড্‌ সার্কিট ক্যামেরা বলা হয়। ক্যামেরার মূল উপাদানগুলোর মধ্যে রয়েছে লেন্স, সেন্সর এবং ডিএসপি বা ডিজিটাল সিগনাল প্রসেসর। লেন্সের কাজ হচ্ছে লাইটের উপর ফোকাস করা যা সেন্সর ইমেজ হিসেবে ধারন করে এবং সেন্সর থেকে তা ডিএসপিতে স্থানান্তরিত হয়। ডিএসপি একে টিভি সিগনাল হিসেবে রূপান্তরিত করে। এরপর তার দ্বারা বা বেতারের সাহায্যে সিগনালটি সেন্ট্রাল লোকেশনে সংরক্ষণ বা পরিদর্শনের জন্য প্রেরিত হয়।

সিসিটিভি ক্যামেরা কেনার ক্ষেত্রে যেসব বিষয় বিবেচনা করতে হবে

কিছু গুরুত্বপূর্ণ উপাদান আছে যা সিসিটিভি ক্যামেরা কেনার সময় বিবেচনা করতে হয়। এক বা একাধিক হার্ডওয়্যার কম্পোনেন্ট আছে যা না জানলেই নয়।

*সঠিক লেন্স নির্বাচন করা- লেন্সের কাজ হচ্ছে সেন্সরের জন্য আলো সংগ্রহ করা। ব্যবহারকারী যা কিছু দেখে বা ডিভিআর এ যা কিছু রেকর্ড হয় সবই লেন্স মারফত হয়। কতটুকু দূরত্বে একটি গাড়ির নাম্বার প্লেট পরা যাবে ও কারও চেহারা চেনা যাবে যা লেন্স নির্ণয় করে কারন লেন্স ফোকাস নিয়ন্ত্রণ করে। অনেক ক্ষেত্রে হায়ার আউটপুট রেজোলিউশানের চেয়ে লেন্স বেশি কার্যকরী কারন আউটপুট সবসময় ইনপুট দ্বারা সীমাবদ্ধ এবং লেন্স হচ্ছে ইনপুট সিস্টেম। তাছাড়া বাজারে জুম লেন্সও পাওয়া যায়। কিছু কিছু সিসিটিভি ক্যামেরাতে ডিজিটাল জুম এবং বাকিগুলোতে অপটিক্যাল জুম আছে যা লেন্স দ্বারা নিয়ন্ত্রিত। ক্রেতার যথাসম্ভব অপটিক্যাল জুমকে ডিজিটাল জুমের উপর গুরুত্ব দেয়া উচিত। ডিজিটাল জুমের সমস্যা হচ্ছে এটি মূল ইমেজের সাথে কোনও তত্ত্ব যোগ করতে পারেনা। অপটিক্যাল জুম মূল ইমেজের সাথে নতুন তত্ত্ব যোগ করতে পারে কারন লাইট সেন্সরে পৌঁছানোর সাথে সাথে ইমেজ পরিবর্তিত হয়।

*সঠিক সেন্সর নির্বাচন করা- সব ধরনের ডিজিটাল সেন্সর এক রকম হয়না। সিসিটিভি ক্যামেরার সেন্সরের স্পেসিফিকেশন যাচাইয়ের ক্ষেত্রে ২টি জিনিস বিবেচনা করতে হয়, তা হল সেন্সর টাইপ ও সেন্সর সাইজ। বেশিভাগ সেন্সর হয় সিএমওএস নয় সিসিডি। সিএমওএসের কর্মক্ষমতা ও সংবেদনশীলতা দুটোই সিসিডি থেকে অপেক্ষাকৃত কম। যার ফলে এটি পরিষ্কার ইমেজ ধারন করতে পারেনা। তাই পরিচয় শনাক্তকরণের ক্ষেত্রে সিএমওএস ব্যবহার করা উচিত নয়। তবে সিএমওএসের সুবিধা হচ্ছে এর মূল্য সিসিডি থেকে কম। পরিষ্কার ইমেজ ধারনের জন্য সিএমওএস ভিত্তিক সেন্সরের অনেক বেশি সিগনাল প্রসেস করতে হয়। সেন্সরের সাইজ যত বড় হয় ততবেশি লাইট প্রসেস ও উন্নতমানের ইমেজ ধারন করতে পারে। বেশিভাগ সেন্সরের সাইজ ১/৪ ইঞ্চি বা ১/৩ ইঞ্চি হয়ে থাকে। ১/৪ ইঞ্চি দ্বারা ৩.২ বাই ২.৪৪ এমএম এবং ১/৩ ইঞ্চি দ্বারা ৪.৮ বাই ৩.৬ এমএম পরিমাপ করা যায়। বড় সেন্সর শুধু ব্যাপক লাইটই ধারন করেনা, ডিএসপিকে কাজ করার জন্য অতিরিক্ত তথ্য দেয় যা অপেক্ষাকৃত কম ক্ষমতাসম্পন্ন বাজেট ক্যামেরাগুলোর জন্য সহায়ক।

*সঠিক আউটপুট রেজোলিউশান নির্বাচন করা- সিসিটিভি ক্যামেরার একটি প্রচলিত স্পেসিফিকেশন হচ্ছে টিভি রেজোলিউশানের সমতল লাইনের সংখ্যা বা টিভিএল। এর রেঞ্জ ৭০০টিভিএল পর্যন্ত হয়ে থাকে। ৩৮০টিভিএল ও ৫৪০টিভিএলেরও বিভিন্ন ক্যামেরা পাওয়া যায়। বিশেষজ্ঞরা ৪২০টিভিএলকে সর্বনিম্ন হিসেবে ধরলেও সবক্ষেত্রে তা প্রযোজ্য নয়। আইটপুট নির্ভর করে ইনপুটের উপর। তাই লেন্স এবং সেন্সর যদি আউটপুট রেজোলিউশানের(ডিএসপি দ্বারা নির্ধারিত) সাথে ম্যাচ করতে না পারে তাহলে অতিরিক্ত রেজোলিউশানের পুরোটাই বৃথা যায়। তাই গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে যথেষ্ট পরিমাণ রেজোলিউশান থাকা যা দ্বারা ক্যামেরায় ধারণকৃত ইমেজ স্পষ্টভাবে প্রদর্শন করা যায়।

বিভিন্ন ধরনের সিসিটিভি ক্যামেরা

সব সিসিটিভি ক্যামেরার সাইজ ও গঠন এক রকম নয়। প্রয়োজনের উপর ভিত্তি করে ক্যামেরাও বিভিন্ন রকম হয়ে থাকে। নিম্নে ৩ ধরনের ব্যাসিক ক্যামেরার উদাহরণ দেওয়া হল

*বুলেট ক্যামেরা- এই ছোট নলাকার ক্যামেরাগুলো সাধারণত এমন পারিপার্শ্বিক অবস্থায় ব্যবহৃত হয় যেখানে বিচক্ষণতা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। অবশ্য একে নিরাপত্তামূলক ডোমে স্থায়ীভাবে ইন্সটলের প্রয়োজন নেই। দোকান ও সেবামূলক প্রতিষ্ঠানে ব্যবহারের জন্য এটি উপযুক্ত।

*ডোম ক্যামেরা- নজরদারির জন্য ডোম ক্যামেরা অসাধারণ। এটি শুধু নৈমিত্তিক ক্ষতি থেকেই ক্যামেরাকে রক্ষা করেনা বরং অতিমাত্রায় নিরাপত্তা প্রদান করে। কারন ক্যামেরাটি কোন দিকে পয়েন্ট করে থাকে তা বোঝা প্রায় অসম্ভব।

*আইআর ডে/নাইট ক্যামেরা- লাইটিং এর অবস্থা যাই থাকুক না কেন, এই ক্যামেরাগুলো ২৪ ঘণ্টা আউটডোর কভারেজ দিয়ে থাকে। এগুলো দিনের বেলা একটি নির্দিষ্ট কালার ইমেজ দিয়ে থাকে এবং রাতে ইনফ্রারেড ভিউ এর জন্য সাদাকালোতে রূপান্তরিত হয়। ব্যবহারকারীর উদ্দেশ্য ও চাহিদার উপর নির্ভর করে সে কোন ধরনের ক্যামেরা ব্যবহার করবে। চাহিদাগুলো নির্ণয় করতে পারলে ক্যামেরা নির্বাচন করা খুবই সহজ।

আপনি ভালো মানের সি সি টিভি ক্যামেরা কিনতে চান? চিনবেন কি করে?

আপনার বাসা বা অফিস এর নিরাপত্তার জন্য সিসি ক্যামেরা খুবই গুরুত্বপূর্ণ এবং ব্যয়বহুল একটি বেবস্থা । সিসিক্যামেরা কেনার আগে আমাদের জানতে হবে কামেরার মান সম্পর্কে। তাই আপনার ব্যবসার জন্য সর্বোত্তম সিসিটিভিক্যামেরা বেছে নেওয়ার আগে, আপনার কি কি লাগবে তা নিয়ে একটু ধারণা থাকতে হবে।

১. ক্যামেরার সাথে কি ইন্টারনাল মেমোরি কার্ড আছে নাকি এটাতে ডাটা সংরক্ষনের জন্যএক্সটারনাল ডিভাইস যোগ করতে হয়?
উন্নত সিসি ক্যামেরা গুলতে এখন ইন্টারনাল মেমোরি কার্ড সংযুক্ত করা হয় বিভিন্ন সায়িজের – ৩২ গিগাবাইট, ৬৪গিগাবাইট, বা ১২৮গিগাবাইট পর্যন্ত। এগুলো ডাটা সংরক্ষনের জন্য সাধারনত এক্সটারনাল ডিভাইস এর উপর নির্ভরকরেনা।
কিন্তু সস্তা ক্যামেরা গুলোতে এই ধরনের ইন্টারনাল মেমোরি সিস্টেম থাকেনা। এগুলতে এক্সটারনাল মেমোরি কার্ডলাগাতে হয় ডিভিয়ার এর সাথে।
২. প্যান / টিল্ট?
আধুনিক সি.সি.টি.ভি. ক্যামেরা তাদের চারপাশে একটি বড় জায়গা জুড়ে অনুভূমিক এবং উল্লম্বভাবে ঘুরতে পারে একটি সিসিটিভি ক্যামেরা সর্বাধিক যত ডিগ্রি অনুভূমিকভাবে ঘোরে তাকে প্যান এবং উল্লম্বভাবে ঘোরে তাকে টিল্টবলা হয়। সেরা সিসি ক্যামেরার কিছু, উদাহরণ, Sricam SP005 এসপি সিরিজ আপ 355 ডিগ্রী পর্যন্ত প্যান এবং 90ডিগ্রী পর্যন্ত টিল্ট। সিসিটিভি ক্যামেরা তাদের অ্যাপ্লিকেশনগুলি দ্বারা রিমোট এরিয়া থেকেই ঘূর্ণায়মান হতে পারে।
৩. ভিডিও এর মান?
ভাল সিসিটিভি ক্যামেরা 720p (2MP) এবং 2080 পি রেজোলিউশনে ভিডিও তৈরি করে। অবশ্যই, হাই রেজল্যুশন,ভাল মানের হবে, তবে, এর জন্য আপনাকে একটি দিনের ভিডিও রেকর্ড করার জন্য বেশি ডাটা সংরক্ষন সিস্টেমপ্রয়োজন। যদি আপনার বেশি ইন্টারনাল স্টোরেজ থাকে, তাহলে হাই-রেজুলেশনের ক্যামেরা কেনা খারাপ হয় না।তবে ইন্টারনাল স্টোরেজ সহ ক্যামেরা সহজে ভরাট হবে। এটি মোকাবেলা করার জন্য, কিছু ক্যামেরার ওভাররাইটবৈশিষ্ট্য আছে যা আগের ডাটা মুছে ফেলার পরে আবার নতুন ডাটা সংরক্ষন করে এবং রেকর্ডিং চালিয়ে যায়।একটি 1 এমপি ক্যামেরা প্রায় 38 গিগাবাইট ডেটা স্পেস নেয় সারা দিনে। সুতরাং একটি নির্দিষ্ট সিসিটিভি ক্যামেরানির্বাচন করার আগে ভিসুয়াল মানের তুলনায় স্টোরেজ স্পেস এবং ব্যাকআপ সময় এগুলো দেখে নেয়া জরুরি।
৪. মোশন এবং অডিও সেন্সর আছে?
মোশন সেন্সর আসলে স্মার্ট নিরাপত্তা ক্যামেরাগুলির একটি অংশ। মোশন এবং অডিও সেন্সরগুলির মাধ্যমে,সিসিটিভি ক্যামেরা মোবাইল অ্যাপের উপর একটি তথ্য পাঠিয়ে অস্বাভাবিক শব্দ এবং আন্দোলন তৈরি করেআপনাকে সতর্ক করে দেয়। যদি আপনার একটি ভাল নিরাপত্তা সিস্টেম প্রয়োজন হয় এবং আপনার বাড়ি বাঅফিস রক্ষা করতে চান, মোশন এবং অডিও সেন্সর যুক্ত সিসিটিভি ক্যামেরা কেনা একটি ভাল সিদ্ধান্ত হতে পারে।
৫. এটা ইনস্টল এবং সেটআপ করা সহজ?
সাধারণত, ওয়্যারলেস সিসিটিভি ক্যামেরা ইনস্টল এবং সেটআপের জন্য সবচেয়ে সহজ হয় কারণ এতে কোনওসংযোগ নেই। সিসিটিভি ক্যামেরা ইনস্টলেশনের সুবিধাটি মূলত পজিশনিং এবং মাউন্ট উপর নির্ভর করে। চৌম্বকঘাঁটিগুলি বা স্টিকি প্যাডগুলির সাথে ক্যামেরাগুলি মাউন্ট করা সহজ, কিন্তু দীর্ঘমেয়াদী জন্য, দেওয়ালে ক্যামেরাটিস্ক্রু করা একটি নির্ভরযোগ্য উপায় । যদি সিসিটিভি ক্যামেরার একটি ভাল প্যান / টিল থাকে, তবে এটি সঠিক পজিশনিংয়ের প্রয়োজন হতে পারে না।আপনি শুধু একটি উঁচু টেবিল বা অয়ারড্রপ উপর তাদের স্থাপন করতে পারেন।
৬. এটা জলরোধী কি?
একটি বাইরের সিসিটিভি ক্যামেরা জন্য, জলরোধী হওয়া আবশ্যক। যদি আপনি আপনার দোকান, বাড়ির বা অন্যকোনও বাইরের স্থানের সামনে স্থাপন করতে চান, তবে আপনাকে জলরোধী সিসিটিভি ক্যামেরাগুলির সন্ধানকরতে হবে।
৭। বাক্সে আসা জিনিসগুলি কি?
আপনি একটি সিসিটিভি ক্যামেরা নির্বাচন করার আগে, আপনার কেনা সামগ্রীগুলির বিবরণ সম্পর্কে জানতে হবে । এর জন্য মূল জিনিসগুলো হল mounting স্ট্যান্ড, পাওয়ার স্ক্রু, তারগুলি এবং পাওয়ার অ্যাডাপ্টারের মতইনস্টলেশন গিয়ার। কখনও কখনও, কম খরচে সিসিটিভি ক্যামেরার সাথে পাওয়ার এডাপ্তর আসে না, এবং এটিএকটি অতিরিক্ত ব্যয় হবে। সুতরাং আপনি আপনার প্যাকেজে এই সব পেয়েছেন কিনা নিশ্চিত করুন।
৮. ক্যামেরাতে ইনফ্রা-রেড এলইডি সংখ্যা ?
ইনফ্রা-রেড এলইডি হল কেন্দ্রের লেন্সের পাশে ছোট বাল্ব গুলো। LEDs সংখ্যা যত বেশি হবে, এটিতে অন্ধকারেতত ভাল রেকর্ডিং হবে।
৯. ক্যামেরা সর্বোচ্চ পরিসর ?
একটি সিসিটিভি ক্যামেরার সর্বাধিক পরিসীমা বা পরিসীমা চিত্র সেন্সরের লেন্স এবং আকারের ফোকাল দৈর্ঘ্যেরউপর নির্ভরশীল। পরিসীমা যত বেশি হবে, দূরবর্তী দূরত্ব থেকে বস্তু তত পরিষ্কার দেখা যাবে। বাইরের সিসিটিভিক্যামেরার জন্য উচ্চ পরিসীমা অপরিহার্য। একটি সিসিটিভি ক্যামেরার কমপক্ষে ২0 থেকে ২5 মিটার রেঞ্জ হবে।

১০. অফলাইনে কাজ করে, এটিতে একটি inbuild হটস্পট আছে।

সিসিটিভি ক্যামেরার inbuild হটস্পট ব্যবহারকারীদের স্মার্টফোনের লাইভ স্ট্রিম অ্যাক্সেস করতে দেয় যাতে ইন্টারনেটের Wi-Fi প্রয়োজন হয় না। কিন্তু এই ক্যামেরা থেকে একটি সীমিত দূরত্ব মধ্যে কাজ করে। এই ক্যামেরাগুলি সহজে সনাক্ত করা যায় কারণতাদের উপর এন্টেনা রয়েছে। এটি ছোট দোকান এবং মলের মধ্যে সিসিটিভি ক্যামেরা ইনস্টল করার একটি ভাল বৈশিষ্ট্য। এতে করেইন্টারনেট সংযোগ ছাড়াই মনিটর করা সম্ভব হয়।

১১. এটি কি DVR এর সাথে সংযুক্ত?

কিছু নির্মাতারা সিসিটিভি ক্যামেরার একটি অংশ হিসেবে সিসিটিভি ক্যামেরা তৈরি করে বিক্রি করে। তারা শুধুমাত্র তাদের প্যারেন্টDVR এর সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ। তাই যদি আপনাকে একটি DVR এর জন্য একটি সিসিটিভি ক্যামেরা কিনতে হয়, নিশ্চিত হয়ে নিবেনএটি DVR এর সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ কিনা।

১২. আউটডোর বনাম ইন্ডোর ক্যামেরা ?

অভ্যন্তরীণ ক্যামেরা অফিস এবং বাড়ির জন্য উপযুক্ত। এই ছোট আকারের এবং সাধারণত একটি গম্বুজ আকৃতির হয়ে থাকে । অন্যদিকে আউটডোর ক্যামেরাগুলি মাঠ, বাইরের দোকান, বাজার, এয়ারপোর্ট, সড়ক ইত্যাদির জন্য ব্যবহৃত হয়। এইগুলি উচ্চপ্যান / টিল্ট এবং জুম রয়েছে যা তাদের বড় ফাঁকা জায়গা জুড়ে দেয়।

১৩. তারযুক্ত বা ওয়্যারলেস সিসিটিভি ক্যামেরা?

তারযুক্ত:
তার কম দামের কারণে বাংলাদেশে সিসিটিভি ক্যামেরা বেশ জনপ্রিয়। একটি Siamese Coax কেবল এর মাধ্যমে DVR এর সাথেসংযুক্ত করা হয়। তারযুক্ত সিসিটিভি ক্যামেরা ওয়্যারলেস সিসিটিভি ক্যামেরার তুলনায় বেশী নির্ভরযোগ্য।
ওয়্যারলেস:
ওয়্যারলেস ক্যামেরা গতিশীলতা এবং স্কেলেবিলিটি অনুযায়ী সুবিধা দেয়। এটি সাধারণত ইনস্টল করা এবং কাছাকাছি সরানো সহজ।ভাল মানের ব্র্যান্ডেড ওয়্যারলেস ক্যামেরা তারযুক্ত ক্যামেরা তুলনায় ব্যয়বহুল। উচ্চমানের অফিস এবং বাড়ী আজ এই ক্যামেরা পছন্দ করে। ওয়্যারলেস ক্যামেরা ব্যবহারের জন্য, আপনার একটি উচ্চমানের রাউটার, নির্ভরযোগ্য ইন্টারনেট সংযোগ এবং গতিথাকতে হবে।

১৪. মূল্য এবং ওয়ারেনটি?

একটি ভাল মানের সিসিটিভি ক্যামেরা কমপক্ষে এক/দুই বছরের ওয়ারেন্টি দিয়ে থাকে এবং দৃঢ় শক্তির সিসিটিভি ক্যামেরা তে ৩ বাআরও তিভিবেশি বছরের ওয়ারেন্টি থাকতে পারে।সিসিটিভি ক্যামেরার মূল্য সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে ভিজিট করুন এখানে।

১৫. বাংলাদেশের শ্রেষ্ঠ সি সি টিভি ব্র্যান্ড?

1. Avtech CCTV & IP Camera (made in Thaiones) 2. SOGO Security System (Made in Japan)3.Hikvision (Made in China)4. JOVISION (Made in China), এবং 5. Dahua (Made in China)
এই সময়েরজনপ্রিয় সিসিটিভি ক্যামেরার ব্র্যান্ড। বাংলাদেশের অন্যান্য জনপ্রিয় সিসিটিভি ক্যামেরার ব্র্যান্ড সম্পর্কে জানতে ভিজিট করুন এখানে।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *